**গান নিয়ে কিছু কথাঃ**

🛑ইসলামে গান শোনা হারাম ।এটা শুনলে অনেকে ক্ষেপে যায়।কি রে ভাই!!!!! ইসলামে সব হারাম হারাম।
কিন্তু কেন হারাম এটা পড়ার পর কিছুটা বুঝবেন হয়তো।আল্লাহ তো আলীমুল গায়েব♥️তিনি তো জানতেন যে ভবিষ্যতে গানের দ্বারা অনেক মুসলিম শিরক করে বসবে,তাই রাসূল(সা:) হয়তো সতর্ক করেছিলেন।
আর যাই হোক,Post টা পড়ার পর গান বাদ না দিলেও কেউ আর না বুঝে বা যাচাই না করে শুনবেন না।একসময় আমারও গানের নেশা ছিল।সেই আমি ছাড়তে পারলে আপনারা কেন না?
হিন্দি গান শুনার আগে বুঝে নিয়েন একটু কি করছেন🚫🚫
সত্যি আমি আর গান শুনি না

আমরা বাংলাদেশীরা কম-বেশি সবাই হিন্দি গান শুনেছি বা শুনি।অনেকে বুঝে না বুঝে গুনগুনিয়ে সেগুলো গেয়েছিও কতবার। কিন্তু আমরা কি গাইতেছি, বা গান গাইতে গিয়ে নিজের অজান্তে কি উচ্চারণ করতেছি তা জানলে অনেকেই শিউরে উঠবেন।হয়তো আমরা সেইভাবে ভাবিও না এইসব নিয়ে।আমি গুগল থেকে কিছু গানের লিরিক্স সংগ্রহ করে অনুবাদ করেছি সকলের বোঝার সুবিধার্থে।যে গানগুলো গাওয়া আর নিজেকে মুশরিক হিসেবে ঘোষণা দেওয়া একই।
আমি এখানে জাস্ট ৫টি গান দিয়েছি।আরও কত শত গান আছে এমন যা আমরা হয়তো শুনেছি, কিন্তু এইভাবে ভেবে দেখিনি কখনও।

Dhvani Bhanushali এর এই গানটা কয়েকদিন আগে সবার মুখে মুখে ছিলোঃ
Vaaste Jaan Bhi Du
Main Gawah Emaan Bhi Du
Kismato Ka Likha Mod Du
Badle Mein Main Tere
Jo Khuda Khud Bhi De
Jannate Sach Kahu Chhod Du
অনুবাদ করলে অর্থ অনেকটা এমন দাঁড়ায়ঃ
{তোমার জন্য জীবনও দিব
ঈমানও বিসর্জন দিব
ভাগ্যের লেখাও বদলে দিব
তোমার বিনিময়ে
ঈশ্বর নিজেও যা দেন
সত্যি বলছি (তোমার জন্য)জান্নাতও ছেড়ে দিব}

নাউজুবিল্লাহ, এই গান যে একবার হলেও গেয়েছে তার তো সাথে সাথে তওবা করা উচিত।জান্নাত পাওয়ার জন্য দুনিয়ায় এসে, কি করে আপনি কাউকে ভালোবেসে জান্নাত ছেড়ে দেওয়ার কথা উচ্চারণ করতে পারেন!

Tujh Mein Rab Dikhta Hai, Yaara Mein Kya Karun
Sajde Sar Jhukta Hai, Yaara Mein Kya Karun
Rab Ne Bana Di Jodii…
অনুবাদ-
{তোমার মধ্যে রবকে দেখতে পাই , আমার কি করা উচিত!
সিজদায় মাথা নত হয়, আমার কী করা উচিত!
রব বানিয়ে দিয়েছেন এমন জুটি……}
“Rab Ne Bana Di Jodii” শাহরুখ খানের খুব হিট মুভি। তার মেইন গান এটা।
কষ্টটা তখন লাগে যখন তার মত মুসলিম একজন আর্টিস্টও এইরকম শিরক গানের সাথে হেলে দুলে নাচতে আপত্তি করেন না।

অক্ষয় কুমারের কোনো এক মুভির গানঃ
Tujhse Mohabbat Ho Gayi, Allah Maaf Kare
Tauba Qayamat Ho Gayi, Allah Maaf Kare
Dekha Tujhe Toh Saansein Ruk Gayi
Sajde Mein Yeh Aankhein Jhuk Gayi
Teri Ibaadat Ho Gayi, Allah Maaf Kare
অনুবাদঃ
{তোমার সাথে ভালোবাসা হয়ে গেছে, আল্লাহ যেন মাফ করে দেন
তওবা কিয়ামত হয়ে গেছে, আল্লাহ মাফ করেন যেন এইজন্য
তোমাকে দেখে শ্বাস বন্ধ হওয়ার উপক্রম
তোমার সেজদায় এই চোখ ঝুকে গেছে
তোমার ইবাদত হয়ে গেছে আমার দ্বারা , আল্লাহ যেন মাফ করে দেন।}
আল্লাহ তায়ালাকে ছেড়ে আপনার দৃষ্টি অন্য কারো সিজদাহ করবে,আপনি অন্য কারো ইবাদাত করবেন, আর সেটা তিনি মাফও করে দিবেন, তা কি করে হতে পারে!!

“Krish 3” নামক বিখ্যাত মুভির গানের অংশবিশেষঃ
God Allah Aur Bhagwan
Ne Banaya Ek Insaan
অনুবাদ-
{ঈশ্বর আল্লাহ অার ভগবান
মিলে বানিয়েছে এক মানুষ।}
ঈশ্বর ভগবানের মাঝে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআ’লাকে টেনে আনার কি দরকার। এই গানও প্রকাশ্য শিরক।সরাসরি মানুষ সৃষ্টিতে আল্লাহর সাথে ঈশ্বর, ভগবানকে ক্রেডিট দেওয়া তো শিকরই।

Sapna Jahan গানের অংশবিশেষঃ
Mere Dil Mein Jagah Khuda Ki Khaali Thi…
Dekha Wahan Pe Aaj Tera Chehra Hai…
Main Bhatakta Hua Sa Ek Baadal Hoon…
Jo Tere Aasmaan Pe Aake Thehra Hai…
অনুবাদ-
{আমার হৃদয়ের ভিতরে ঈশ্বরের জন্য একটি জায়গা খালি ছিল
আজ আমি সেখানে তোমার চেহারা দেখতে পাচ্ছি
আমি ঘোরাঘুরি করা একটা মেঘের মতো
যা তোমার আকাশে এসে এখনও থেমে আছে।}
ঈশ্বরের জায়গা খালি থাকে তো নাস্তিকদের। একজন মুসলিমের মুখে এই গান বেমানান।
.
.

শিরক নিয়ে কিছু কথাঃ

শিরক এমন একটি গুনাহ যা করলে ঈমান এবং পূর্বের সমস্ত আমল সম্পুর্ন নষ্ট হয়ে যায়। কিয়ামতের দিন আল্লাহ সুবাহান্তায়ালা যেকোন গুনাহ ইচ্ছা করলে ক্ষমা করে দিবেন কিন্তু শিরকের গুনাহ কস্মিনকালে ও ক্ষমা করবেন না।
আল্লাহ বলেন,,
নিসন্দেহে আল্লাহ ইচ্ছা করলে যেকোন গুনাহ ক্ষমা করে দিবেন কিন্তু শিরকের গুনাহ কখনো ক্ষমা করবেন না
(সুরা নিসা :৪৮,১১৬)

নিশ্চয় যে ব্যাক্তি আল্লাহর সাথে অংশীদার স্থির করে আল্লাহ তার জন্য জান্নাতকে হারাম করে দেন এবং জাহান্নামকে অবধারিত করে দেন (সুরা মায়িদাহ:৭২)

রাসুল্লাহ (সা) বলেছেন,,
“আমার সামনে জিব্রাঈল আবির্ভূত হলেন। তিনি বললেন, আপনি আপনার উম্মতদের সুসংবাদ দিন, যে ব্যাক্তি আল্লাহর সংগে কাউকে শরিক না করা অবস্থায় মারা যাবে, সে জান্নাতে প্রবেশ করবে। আমি বললাম, যদিও সে যিনা করে এবং যদিও সে চুরি করে থাকে? তিনি বললেন: যদিও সে যিনা করে এবং যদিও সে চুরি করে থাকে।
[সহিহ বুখারি :১২৩৭,মুসলিম:৯৪]

শিরক হচ্ছে সবচেয়ে বড় ধ্বংসত্মাক বিষয়। শত পাপ করলে ও কিয়ামতের দিন তা ক্ষমার সম্ভবনা আছে কিন্তু শিরকের পাপ ক্ষমার কোন সম্ভবনাই নেই এবং তা নিসন্দেহে জাহান্নামে নিয়ে যাবে।

তথ্যসূত্রঃ Al-Quran।The solution to humanity Page

গান আমরা শুনি বিনোদনের জন্য,মন ভালো করতে,ডিপ্রেশন দুর করতে।আদতে এই তিনটির কোনো শক্তিই গানের মধ্যে নেই।গান আল্লাহর স্মরণ থেকে মানুষকে উদাসীন,বিমুখ করে রাখে।নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বাদ্যের আওয়াজ শুনলে কানে আঙুল ঢুকিয়ে রাখতেন।
শায়খুল ইসলাম ইমাম ইবনু তাইমিয়্যাহ্ রাহিমাহুল্লাহ বলেন, ‘‘গান হচ্ছে অন্তরের মদ।’’ [মাজমু‘উ ফাতাওয়া: ১০/৪১৭]
তাঁরই সুযোগ্য ছাত্র হাফিয ইবনুল কায়্যিম রাহিমাহুল্লাহ্ বলেন, ‘‘কোনো বান্দার অন্তরে কোনো অবস্থাতেই গানের মহব্বত এবং কোরআনের মহব্বত একত্র হতে পারে না।’’ [ইগাসাতুল লাহফান]
ইয়া আল্লাহ আমাদের সকলকে শিরক থেকে বাঁচার তৌফিক দান করুন।কষ্ট করে পড়ার জন্য জাযাকাল্লাহু খইরন।ভূল-ত্রুটি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

ইসলামের পথে

Leave a Reply

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s