শিয়াল পণ্ডিত

মুসলিম রাষ্ট্রে ‘’ নোবেল করোনা ভাইরাস’’ বনাম দূরন্ত শিয়ালের লেঁজ কাটার তথ্য:

কথায় আছে, শিয়ালের শিয়াল্লা বুদ্ধি।
শিয়াল মানে অনেক চতুর ও দূরন্ত। তাই তাকে নিয়ে লোক মুখে অনেক রসালো গল্পের মজাই আলাদা।
তেমনি এক দূরন্ত শিয়াল মুরগি চুরি করতে গিয়ে ফাঁদে পড়ে লেঁজ হারিয়ে কোন মতে পালিয়ে জান বাঁচায়। মুশকিল হলো এখন অন্য শিয়ালরা তার এ লেঁজ কাটার খবর জানতে পারলে শিয়াল সমাজে সে লজ্জিত হতে হবে। তাই সে এ আপদ থেকে বাঁচার জন্য একটি সভার আয়োজন করলো। অতপর বক্তব্য দিতে লাগলো:
শুন শিয়াল ভাইয়েরা!
আমাদেরকে অন্যরা ঘৃনা করার কারন হলো আমাদের লম্বা লেঁজ। আমরা যদি এটা কেটে ফেলি তাহলে আমাদেরকে আর কেউ ঘৃনা করবে না। এ জন্য আমি আমার লেঁজ কেটে ফেলেছি। এখন আমাকে সবাই সম্মান করে। সুতরাং তোমরাও যদি তোমাদের লেঁজ কেটে ফেল, তাহলে তোমাদেরকে কেউ ঘৃনা করবে না বরং সবাই সম্মান করবে। শিয়ালের এ বক্তব্য শুনে সবাই তাদের লেঁজ কাটতে প্রস্তুত হয়ে গেল।
সে সভায় একটি বয়স্ক অভিজ্ঞ চালাক শিয়াল ছিল। সে চুরা শিয়ালের দূরন্তর ফাঁদ ধরে ফেললো এবং বললো, তুমি আমাদের ধোকা দিয়ে বোঁকা বানাচ্ছ। তুমি কোথাও ধরা খেয়ে লেঁজ হারিয়ে এখন আমাদের লেঁজ কাটার ফন্দি করছো। হা হা হা
সুতরাং বয়স্ক শিয়ালের বাস্তব মুখি উপলব্ধির ফলে সবার লেঁজ কাটা থেকে রক্ষা ফেল।

ঠিক তেমনি নোবেল করোনা ভাইরাসে
আক্রান্ত হয়েছে অমুসলিমরা। এখনো হচ্ছে। এতে তাদের মাঝে দেখা দিয়েছে মানবিক বিপর্যয়। অর্থনীতি থমকে গেছে। মনগড়া ধর্মও প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। তাই মানব রূপি শিয়ালগুলো ফন্দি করলো, করোনা অাতঙ্ক যদি মুসলিম রাষ্ট্রে ঢুকানো না যায় তাহলে তো আমাদের অর্থনৈতিক ধস নামবে ধর্মও প্রশ্ন বিদ্ধ হবে। ফলে মুসলমানদের উত্থান ঠেকানো অত্যন্ত দুষ্কর হয়ে যাবে। তাই যেভাবেই হোক এ আতঙ্ক মুসলিম রাষ্ট্রে ঢুকাতে হবে। প্রয়োজনে বিশ্ব ব্যাংক থেকে অগ্রিম সুদী লোন দিয়ে হলেও। তাহলে আমাদের বিপর্যয় কেটে যাবে, অর্থনীতি
ঠিক থাকবে এবং মনগড়া ধর্মও রক্ষা পাবে।
কিন্তু আমাদের দূর্ভাগ্য যে, আমাদের ঈমান ও আক্বিদা বিশ্বাস আমাদেরকে বাস্তবতা মুখি কোন সত্য উপলব্ধির সুযোগ দিলো না। আহ ! আমাদের ঈমান কত দূর্বল! আমরা কত অসহায়!